মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
পাতা

উপজেলা ঐতিহ্য

নরসিংদী জেলাধীন নরসিংদী সদর উপজেলা ২ টি (নরসিংদী ও মাধবদী) পৌরসভা এবং চিনিশপুর, হাজীপুর, শীলমান্দি, মেহেরপাড়া, পাচদোনা, আমদিয়া, নুরালাপুর, কাঠালিয়া, পাইকারচর, মহিষাশুড়া, করিমপুর, নজরপুর, আলোকবালী ও চরদিঘলদী ইউনিয়ন এ ১৪ টি ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত। উপজেলার ভূ-প্রকৃতি ও ভৌগলিক অবস্থান এই উপজেলার মানুষের ভাষা ও সংস্কৃতি গঠনে ভূমিকা রেখেছে। বাংলাদেশের ঢাকা বিভাগের অতি নিকটে অবস্থিত নরসিংদী জেলার প্রান কেন্দ্রের এই উপজেলার পূর্বে রায়পুরা উপজেলা, পশ্চিমে পলাশ উপজেলা, উত্তরে শিবপুর উপজেলা, দক্ষিনে নারায়গঞ্জ জেলার আড়াই হাজার উপজেলা। এই উপজেলার মানুষের ভাষা বাংলাদেশের অন্যান্য উপজেলার মতই, তবুও কিছুটা বৈচিত্র্য খুঁজে পাওয়া যায়। নরসিংদী সদর উপজেলার আঞ্চলিক ভাষার সাথে গাজীপুর ও ময়মনসিংহের আঞ্চলিক ভাষার কিছুটা মিল রয়েছে।

 

বিশেষজ্ঞরা মনে করেন মেঘনা ও ব্রহ্মপুত্র নদীর তীর বিধৌত প্রাচীন সভ্যতা ও ঐতিহ্য লালিত এবং করিমপুর, নজরপুর, আলোকবালী ও চরদিঘলদী মেঘনা নদী বেষ্টিত চরাঞ্চল হওয়ায় সদরউপজেলার মানুষের খাদ্যাভাস, আচার-আচরণ ভাষা ও সংস্কৃতিতে ব্যাপক প্রভাব ফেলেছে। এ এলাকায় জমিদারগন বসবাস করতেন। প্রাচীন কালে মানুষের প্রধান যানবাহন ছিল নৌকা, লঞ্চ, স্টিমার ইত্যাদি। মেঘনা নদী এই উপজেলার মাঝামাঝিতে বয়ে গেছে। যার জন্য এই উপজেলায় জমিদারগন বসবাস করতেন। এই এলাকায় প্রাপ্ত প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শন প্রাচীন সভ্যতার বাহক হিসেবে প্রমাপক।

 

 

 

মহান মুক্তিযুদ্ধেও গৌরবময় ইতিহাস সৃষ্টিতেও নরসিংদীর ঐতিহ্য রয়েছে। নরসিংদী জেলায় প্রথম সম্মুখ মুক্তিযুদ্ধ হয়েছে নরসিংদী সদর উপজেলার পাচদোনা ইউনিয়নের পাচদোনা ব্রীজের পাশে। এ উপজেলায় প্রচুর বীর মুক্তিযোদ্ধা রয়েছে। যারা জীবন বাজি রেখে স্বাধীনতা ছিনিযে এনেছে।